মধুপরে সড়ক উন্নয়নের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে বন বিভাগ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ জনগণের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়ক উন্নয়নের কাজ করছে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর। কিন্তু মধুপুর উপজেলার জলছত্র পঁচিশ মাইল থেকে রসুলপুর পর্যন্ত সাত কিলোমিটার সড়কের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় বন বিভাগ বলে অভিযোগ করেছে সড়ক বিভাগ।

বন বিভাগের দাবি, যে জায়গায় সড়কের উন্নয়ন করা হচ্ছে সেটি বন বিভাগের। তাই সেখানে সড়ক নির্মাণ করতে দেওয়া হবে না। কাজ করতে হলে উপরের কর্তৃপক্ষের অনুমতি লাগবে।

এদিকে, সড়ক প্রসস্তকরণ বন্ধ থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন এই রুটে যাতায়াতকারী যানবাহনের চালক ও সাধারণ যাত্রীরা। যত দ্রুত সম্ভব কাজ শেষ করার দাবি জানিয়েছেন তারা।

টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্র জানায়, যানজট নিরসনে বিভিন্ন আঞ্চলিক সড়ক প্রসস্তকরণে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কয়েকটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। এর মধ্যে টাঙ্গাইলের মধুপুর থেকে ময়মনসিংহ পর্যন্ত ৫০০ কোটি টাকা ব্যয়ে তিন কিলোমিটার বাড়িয়ে ৪৭ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। ১৮ ফুট থেকে উন্নিত করে দুই পাশে সোল্ডারসহ ৪০ ফুট সড়ক উন্নয়নের কাজ চলছে। মধুপুর থেকে রসুলপুর পর্যন্ত ১৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে ১৫ কিলোমিটার সড়ক।

মধুপুর থেকে রসুলপুর পর্যন্ত সড়কের এই অংশের কাজ পায় তাহের ব্রাদার্স লিমিটেড নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। গত বছরের জুন মাস থেকে ওই সড়কের কাজ ধরা হয়। সড়কের আট কিলোমিটার কাজ প্রায় ৭০ ভাগ শেষ হয়েছে। কিন্তু মধুপুর উপজেলার জলছত্র পঁচিশ মাইল থেকে রসুলপুর পর্যন্ত সাত কিলোমিটার সড়কের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে স্থানীয় বন বিভাগ। বনবিভাগ কর্তৃপক্ষের দাবি, যে স্থানে সড়ক প্রসস্ত করা হচ্ছে সেই জায়গা তাদের। তাই তারা তাদের জায়গায় সড়ক নির্মাণ করতে দেবে না।

সড়ক বিভাগ জানায়, মধুপুর-ময়মনসিংহ ৪৫ কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে তাদের ৭০ ফুট করে নিজস্ব জায়গা রয়েছে। আর এই জায়গা ১৯৪১ সালে অধিগ্রহণ করে নেওয়া হয়েছে। যার সব কাজপত্র সংশ্লিষ্ট দপ্তরে রয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করেই বন বিভাগ ওই সড়কের কাজে বাঁধা দেয় এবং তারা জানায় এই জায়গা তাদের।  তাদের জায়গায় সড়কের কাজ করা যাবে না। এ পরিস্থিতিতে বর্তমানে সড়কের কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে।

তাহের ব্রাদার্স লিমিটেডের প্রজেক্ট ম্যানেজার মো. মিজানুর রজমান জানান, মধুপুর থেকে রসুলপুর পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে আট কিলোমিটার সড়কের কাজ প্রায় ৭০ ভাগ শেষ হয়েছে। ২০২৪ সালের জুন মাসের মধ্যে এই কাজ শেষ করতে হবে। কিন্তু হঠাৎ করেই জলছত্র থেকে রসুলপুর পর্যন্ত সাত কিলোমিটার সড়কের কাজ করতে বন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বাঁধা দেন।

টাঙ্গাইল বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. সাজ্জাদুজ্জামান জানান, এই সড়কটি ব্রিটিশ আমলে করা হয়েছে। তাই তিনি এ বিষয়ে তেমন কোনো কিছু জানেন না। তবে এটি বন বিভাগের সংরক্ষিত এলাকা। এখানে সড়ক বিভাগের কোনো জায়গা নেই। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ না পাওয়া পর্যন্ত এই সড়কে কাজ করা যাবে না।

টাঙ্গাইল সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ আলিউল হোসেন জানান, ৪৫ কিলোমিটার সড়কের পাশে ৭০ ফুট করে নিজস্ব জায়গা ১৯৪১ সালে অধিগ্রহণ করে নেওয়া হয়েছে। এর সব কাজপত্র রয়েছে। এছাড়া সব কাগজপত্র যাচাই বাছাই করেই প্রকল্প পাশ করা হয়।

তিনি আরও জানান, সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতেই বিভিন্ন আঞ্চলিক সড়ক উন্নতকরণের কাজ শুরু করা হয়েছে। কিন্তু রাষ্ট্রের উন্নয়নে কোনো রাষ্ট্রীয় দপ্তর বাঁধা দেবে এটা বোধগাম্য নয়।

মুহাম্মদ আলিউল হোসেন জানান, সড়কের কাজ দ্রুত সময়ে শেষ করতে না পারলে নির্মাণ কাজ বন্ধ থাকবে। এই সাত কিলোমিটার সড়কের জন্য এই রুটে চলাচলকারী যানবাহনের চালক ও সাধারণ যাত্রীদের দুর্ভোগ আরো বাড়বে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap