ফাইল ছবি

ঘাটাইল উপজেলায় গত এক বছরে ১৫টি খুনের ঘটনা ঘটেছে

ঘাটাইল প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় গত এক বছরে ১৫টি খুনের ঘটনা ঘটেছে। টাঙ্গাইল পুলিশ অফিসের অপরাধ শাখা সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে। পরকীয়া প্রেম, যৌতুক, জমির বিরোধ, পারিবারিক কলহের জেরসহ বিভিন্ন কারণে এসব খুনের ঘটনা ঘটেছে।

টাঙ্গাইল পুলিশ অফিসের অপরাধ শাখার তথ্যমতে, টাঙ্গাইলের ১২টি উপজেলার ১৩টি থানায় ২০২১ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৮১টি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। তার মধ্যে সর্বোচ্চ ১৫টি মামলা হয়েছে ঘাটাইল থানায়।

ঘাটাইলের হত্যা মামলাগুলোর মধ্যে আলোচিত মামলা ছিল উপজেলার দিগড় ইউনিয়নের কাশতলা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের তিন খুন মামলা। গত ৩০ অক্টোবর এ ঘটনা ঘটে। ওই দিন একটি তালাবব্ধ ঘর থেকে সৌদি আরব প্রবাসী জয়েন উদ্দিনের স্ত্রী সুমী বেগম (২৫), তার শাশুড়ি জমেলা খাতুন (৬০) এবং সুমি বেগমের প্রেমিক শাহজালাল (৩০) রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

আরেকটি আলোচিত ঘটনা ছিল উপজেলার দেওপাড়া ইউনিয়নের পন্ডিত কাছড়া গ্রামে স্বামীর হাতে স্ত্রী খুনের ঘটনা। গত ২০ নভেম্বর রাতে স্ত্রী মিনারা আক্তারকে পারিবারিক কলহের জেরে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন স্বামী আমিনুল ইসলাম। স্ত্রীকে হত্যার পর লাশের পাশে বসেই থানায় ফোন দিয়ে স্ত্রী হত্যার খবর জানান পুলিশকে। তিনি ফোনে পুলিশকে বলেন, আমার স্ত্রীকে আমি হত্যা করেছি। আপনারা এসে আমাকে নিয়ে যান। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে এবং আমিনুলকে গ্রেফতার করে।

এছাড়াও গত ৪ ডিসেম্বার রাতে উপজেলা ছয়আনি বকশিয়া গ্রাম থেকে নুসরাত জাহান নিশি (১৯) নামে এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার পর স্বামী আব্দুল আলিম বোরকা পড়ে পালাতে গিয়ে শ্বশুরবাড়ির লোকজন ও স্থানীয়দের হাতে ধরা পড়েন। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করলে পুলিশ স্বামী আলিমসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে পাঠায়।

২১ নভেম্বর পরকিয়ায় বাধা দেয়ার প্রেমিককে নিয়ে স্বামী প্রতীক হাসানকে খুন করেণ স্ত্রী লিজা আক্তার (২০)। পরে স্বামীর হত্যাকান্ডের ঘটনাটি হার্ট অ্যাটাক বলে চালিয়ে দিতে লাশ নিয়ে আসেন স্বামীর বাড়ি উপজেলার কাজলা গ্রামে। লাশ দেখে সন্দেহ হয় স্বামীর বাড়ির লোকজনের। তারা খবর দেন পুলিশকে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে স্ত্রীসহ ৩ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যান। পুলিশের জিঞ্জাসাবাদে বেরিয়ে আসে স্ত্রীর পরকিয়ার কারণে স্বামী হত্যার ঘটনা। পরে এ ঘটনায় মামলা হলে স্ত্রী লিজা আক্তার তার মা ফাতেমা ও দাদি লাকি আক্তারকে পুলিশ আদালতে মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠায়।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর দুপুরে উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের গড়জনাপাড়া গ্রামে পরকিয়ার জেরে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে স্বামী। ঘটনার পর স্বামী নিজে বিষপানে আত্মহত্যা চেষ্টা চালান। পরে এ ঘটনায় নিহতের ভাই কায়সার হামিদ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

গত ১৯ এপ্রিল উপজেলার সাগরদিঘী ইউনিয়নের কামালপুর গ্রামে শ্বাসরোধ করে স্ত্রী বানেছা বেগমকে (৪০) হত্যা করে স্বামী খোকন পালিয়ে যান। পরে তালাবদ্ধ ঘর থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

ঘাটাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজহারুল ইসলাম সরকার বলেন, অধিকাংশ হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন করে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। কিছু মামলার তদন্ত কাজ এখনো চলমান রয়েছে। আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যে বাকি মামলার তদন্ত কাজ শেষ হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap