কালিহাতীতে নদীতে বাঁধ দিয়ে অবৈধভাবে বাংলা ড্রেজার ও ভেকু দিয়ে বালু উত্তোলন ও বিক্রির মহোৎসব চলছে

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে নদীতে বাঁধ দিয়ে পানিপ্রবাহ বন্ধ করে অবৈধভাবে বাংলা ড্রেজার ও ভেকু দিয়ে বাণিজ্যিকভাবে দিবা-রাত্রি বালু উত্তোলন ও বিক্রির মহোৎসব চলছে। যার ফলে হুমকির মুখে রয়েছে নদী তীরবর্তী বসতবাড়ী, বিদ্যালয়, বাজার ও বিভিন্ন স্থাপনা। এতে করে রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। গত কয়েক বছর যাবত অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে নদী তীরবর্তী বাড়ি-ঘর ভেঙে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। পরিবেশবাদী ও স্থানীয় ভূক্তভোগীরা বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।
সরেজমিনে, কালিহাতী উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত লৌহজং নদীর গোহালিয়াবাড়ী ইউনিয়নের যোকারচর এলাকায় নদীতে বাঁধ দিয়ে পানিপ্রবাহ বন্ধ করে শতাধিক বাংলা ড্রেজার বসিয়ে ও ভেকু দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছেন। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের হীনস্বার্থে প্রশাসনিক নির্দেশনা অমান্য করে সরকারি নিলামকৃত বালুর ভিটি কেটে রাস্তা নির্মাণ ও বালু বিক্রি করা হয়েছে।
অবৈধ বাংলা ড্রেজার ও ভেকু বসিয়ে বালু উত্তোলন করে প্রতিদিন শত শত ট্রাক, ড্রাম ট্রাকে বালু বিক্রি করে হাতিয়ে নিচ্ছে বিপুল পরিমাণ অর্থ। যার নেতৃত্বে রয়েছেন স্থানীয় মৃত চান মাহমুদের ছেলে মাছুদ সরকার ও মৃত বাহার আলীর ছেলে নুরুল ইসলাম মেম্বার প্রমুখ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় ব্যক্তিরা জানান, ইতিপূর্বে ওই স্থানে বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে প্রতিবাদকারীদের উপর হামলা ও বাড়ী ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটেছে। কোনসময় কিছু বলতে গেলে তাদের হত্যার হুমকি দেয়া হয়। বালু খেকোরা প্রকাশ্যে বলে বেড়ায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতা ও লোকেরা এ বালু ব্যবসার সাথে জড়িত। স্থানীয়রা আরো জানান, প্রশাসনের নিকট অভিযোগ করেও কোন লাভ হয়নি। বালু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আপনারা সংবাদ করলে কি হবে? শুধু জায়গামত তাদের খরচটা বাড়িয়ে দেবে। তাহলে আর কোন ব্যবস্থা হবে না। যদি কখনো ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের পরিচালনা হয় তবে বালুঘাটে যাওয়ার আগেই সেখানে খবর চলে যায়। এ বিষয়ে বালু উত্তোলনকারীদের সাথে ফোন যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে কেউ রিসিভ করেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap