টাঙ্গাইলে সংবাদে যুবলীগ নেতার ছবি অর্ধেক কাটা পড়ায় সাংবাদিককে দেখে নেয়ার হুমকি

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ সংবাদে ছবি অর্ধেক কাটা পড়ায় সাংবাদিক রবিন’কে দেখে নেয়াসহ আর কোনদিন সংবাদ না করার হুমকিও দিয়েছেন টাঙ্গাইল সদর থানা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম সাগর। ঘটনাটি ঘটেছে গত ২১মে শনিবার মগড়া ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ আয়োজিত ইউনিয়ন সম্মেলনের প্রস্তুতি সভার সংবাদ প্রকাশকে কেন্দ্র করে।

সাংবাদিক রবিন জানান, মগড়া ইউনিয়ন যুবলীগ সম্মেলন প্রস্তুতি সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ১নং মগড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান আজাহারুল ইসলাম। সভায় সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবু সাইম তালুকদার বিপ্লবের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন সদর থানা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম সাগর, সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম রাজীব এবং সোহেল রানা বাবু।

সম্মেলন প্রস্তুতি সভাটি কুইজবাড়ী বাজারের একটি ছোট ঘরে অনুষ্ঠিত হওয়ায় ছবি তুলতে গিয়ে মোবাইলের ক্যামেরার অপারগতার দরুন লাইনের শেষের চেয়ারে বসে থাকা থানা আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম সাগরের ছবিটি অর্ধেক কাটা পরে যায়। পরে অনলাইন নববার্তা ডটকম পোর্টালে ছাপা হওয়ার পর তিনি সংবাদটির ছবি দেখে খুব ক্ষিপ্ত হয়ে যান এবং অনেকের সামনে আমার অনুপস্থিতিতে আমার জন্মদাত্রী মা’কে তুলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন।

রবিন আরো জানান, গালিগালাজের বিষয়টি সর্ম্পকে ২২ মে রাতে অবগত হই। সাথে সাথে আমি আমার মুঠোফোন থেকে ঐ রাতেই আনুমানিক ১০.৪০ এর দিকে সদর থানা আওয়ামী যুবলীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম সাগরকে ফোন দেই। মুঠোফোনে আমি উনাকে মোবাইলের ক্যামেরার অপারগতা এবং রুমের ভেতরের জায়গার অপ্রত্যুলতার কথা শত বোঝানোর চেষ্টা করলেও তিনি তার কথায় অটল থাকেন ও আমাকে তিনি দেখে নিবেন এবং পরবর্তীতে আমি কিভাবে বিভিন্ন ইউনিয়নে গিয়ে সাংবাদিকতা করি তাও তিনি দেখে ছাড়বেন বলে আমাকে হুমকি দেন।

এমতাবস্থায় আমি আমার পেশাগত দ্বায়িত্ব পালন করতে গিয়ে জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে শংকিত হয়ে পড়েছি। যুবলীগ নেতা রেজাউল করিম সাগর মুঠোফোনে আমাকে এসব হুমকি দেয়ার পরে আমি বিষয়টি টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের সভাপতি এ্যাডভোকেট জাফর আহমেদকে জানাই।

সেই সাথে টাঙ্গাইল জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন মানিক এবং সদর থানা যুবলীগের সভাপতি আবু সাইম তালুকদার বিপ্লবকেও ঘটনাটি অবহিত করি এবং সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম সাগরের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তাদেরকে অনুরোধ করি।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল সদর থানা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম সাগরের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

এঘটনায় টাঙ্গাইল জেলার সকল সংবাদকর্মীরা যুবলীগ নেতার এই কর্মকান্ডে তীব্র নিন্দা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। সেই সাথে ওই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী করে বলেন সাংবাদিক রবিননের যদি কোন প্রকার ক্ষতি করা হয় তাহলে তারা পরবর্তীতে কঠোর হওয়ার কথা বলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap