সখীপুরে বৃষ্টির অভাবে আমনের চাষ করেতে পারছেনা আমন চাষিরা

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের সখীপুরে বৃষ্টির অভাবে আমনের চাষ করেতে পারছেনা আমন চাষিরা। দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন উপজেলার কৃষকেরা।

বৃষ্টির মৌসুম হলেও কাঙ্খিত বৃষ্টির দেখা মিলছেনা উক্ত উপজেলায়। আষাঢ়-শ্রাবণ মাসেও বৃষ্টি না হওয়ায় উক্ত উপজেলায় রোপা আমন চাষাবাদে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। রোপা আমন চাষাবাদের ভরা মৌসুমেও কৃষকেরা ধানের চারা রোপণ করতে পারছেন না। এদিকে প্রখর রোদে বীজতলা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বর্ষা মৌসুমেও বৃষ্টির দেখা না পেয়ে দৃশ্চিন্তায় রয়েছেন সখীপুর উপজেলার আমন চাষিরা।

কৃষকেরা বলছেন, মধ্য আষাঢ় থেকে শুরু করে শ্রাবণ মাস পর্যন্ত আমন ধানের চারা জমিতে রোপণ করা হয়। তবে এবার তেমন বৃষ্টি না হওয়ায় তারা আমন চাষাবাদ নিয়ে দুর্ভোগে পড়েছেন। মূলত বর্ষাকালে বৃষ্টিতে জমে থাকা পানিতে কৃষকেরা রোপা আমন চাষ করে থাকেন। সাধারণত বীজতলায় তৈরি হওয়া চারা ২৫ থেকে ৩০ দিনের মধ্যে জমিতে লাগানো হয়। তবে, অনেক কৃষকের চারার বয়স দেড় মাস পেরিয়ে গেছে। গতকাল শনিবার সখীপুর উপজেলার মাঠগুলোতে ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

বর্ষার ভরা মৌসুমে বৃষ্টি না হওয়ায় সেচের মাধ্যমে বীজ উৎপন্ন ও চারা রোপণের জন্য ক্ষেত প্রস্তুত করছেন এখানকার কৃষকেরা। এদিকে বিদ্যুৎ সংকটের কারণে সেচ দিয়ে চারা রোপণ ব্যাহত হচ্ছে। বৃষ্টির পানি ছাড়া আমন ধান উৎপন্নে বড় ধরনের প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন এখানকার কৃষি বিভাগ। কৃষকেরা জমিতে সেচের পানি ব্যবহার করে আপন ধানের চারা রোপণের জন্য ক্ষেত তৈরি করছেন।

নিজ উদ্যোগে পানির ব্যবস্থা করে আমন ধানের বীজতলা তৈরি করেছেন যাদবপুর ইউনিয়নের বোয়ালী এলাকার কৃষক মোতালেব মিয়া। তিনি বলেন, গত বছরও আষাঢ় মাসে দিনের পর দিন বৃষ্টি হয়েছে। তবে, এবার আষাঢ় মাস শেষ হলেও বৃষ্টি নেই। আমার মতো দরিদ্র কৃষকের পক্ষে সেচের জন্য অতিরিক্ত টাকা খরচ করে আমন ধান চাষাবাদ করা কঠিন।

আমন চাষি জাকির হোসেন বলেন, বৃষ্টি না হওয়ায় কৃষকেরা দুশ্চিন্তায় রয়েছেন। এ মৌসুমে আমন ধানের চারা রোপণের সময় শুরু হয় শ্রাবণ মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে। তিনি ৫ বিঘা জমিতে এবার আমন ধান উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছেন। বৃষ্টি না হওয়ায় এখনো তিনি চারা রোপণে ক্ষেত প্রস্তুত করতে পারেননি।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিয়ন্তা বর্মন বলেন, বর্তমানে বর্ষার ভরা মৌসুম চলছে। তারপরও সখীপুরে পর্যাপ্ত বৃষ্টি নেই। কৃষি অফিস থেকে কৃষকদের সেচ দিয়ে আমন রোপণের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি সঠিক বয়সে চারা রোপণের বিষয়ে কৃষকদের তাগিদ দেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে সম্পূরক সেচ দিয়ে সঠিক বয়সের চারা রোপণের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এদিকে বিদ্যুৎ সমস্যা সারা দেশেই হচ্ছে। তারপরও আমনের চারা রোপণের সময়ে কৃষকদের জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত বিদ্যুতের নিরবচ্ছিন্ন সেবা দেওয়া যায় কি না, বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap