নাগরপুর চলতি মৌসুমে ভুট্টার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

নাগরপুর প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলায় চলতি মৌসুমে ভুট্টার বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। উপজেলার বিস্তৃণ মাঠ জুড়ে এখন শুধু ভুট্টার উঠতি চারা শোভা পাচ্ছে। ঝিলমিল করে বাতাসে দুলছে ভুট্টার সবুজপাতা। নাগরপুরের কৃষকরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে মাঠ থেকে কাঙ্খিত ফসল ঘরে তোলার জন্য।

নাগরপুর উপজেলার অধিকাংশ প্রান্তিক চাষীরা গত কয়েক বছর যাবৎ ভুট্টার চাষ করে আসছে। অন্য ফসলের তুলনায় কম খরচে বেশি লাভজনক হওয়ায় ভুট্টা চাষে কৃষকদের আগ্রহ দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ভুট্টা চাষে কীটনাশক ও সেচ তেমন বেশি দিতে হয় না। বর্তমানে আটার বিকল্প ও গো খাদ্য হিসেবে ভুট্টা ব্যাপকভাবে ব্যবহার হচ্ছে। তাছাড়া পোল্ট্রী শিল্পের জন্যও ভুট্টার ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।

বিঘা প্রতি আট থেকে দশ হাজার টাকা খরচ করে চাষীরা ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকার ভুট্টা বিক্রী করতে পারে। চলতি মৌসুমে ফলনের ভাল হওয়ায় কৃষকের মুখে ফুটেছে হাসি ।

কৃষক আব্দুল জলিল ও রশিদ মিয়া জানান, ভুট্টার চাষ খুবই লাভজনক। সেচ ও কীটনাশক কম লাগে। আবার ভুট্টা ঘরে তুলার পর জমিতে পাট ও ধানের আবাদ করা যায়। একবিঘা জমিতে প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ মন ভুট্টা হয় যা ধানে তুলনায় অনেক বেশী। কৃষি বিভাগের পর্যাপ্ত সহযোগীতা পাওয়া গেলে তারা আরো বেশী লাভবান হবেন বলেও জানান।

মামুদনগর ইউনিয়নের ভুট্টা চাষী মো. আলী বলেন, ধানের চেয়ে ভুট্টা মারাই করা সহজ। এক জমিতে ভুট্টাসহ তিনটি ফসল আবাদ করা যায়। ভুট্টা চাষে খরচ কম হওযায় লাভ বেশী। অন্য বছরের তুলনায় এবার ফলন ভাল হবে বলেও তিনি আশাবাদী।

নাগরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল মতিন বিশ্বাস বলেন, চলতি মৌসুমে নাগরপুর উপজেলায় ১৫ শত হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষ হচ্ছে। আশা করা যাচ্ছে এবার ১৮ হাজার একশত ৬০ মেট্রিক টন ভুট্টা উৎপাদিত হবে। কৃষি বিভাগ ভুট্টা চাষ বৃদ্ধি করতে কৃষকদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষন ও সহোযোতিা করছে বলেও তিনি জানান।

ফসলের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করা গেলে কৃষকরা লাভবান হবেন এবং একই সাথে আগামীতে নাগরপুর উপজেলায় ভুট্টার আবাদ আরো বাড়বে এমনটাই প্রত্যাশা সংশ্লিষ্ঠদের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ বিভাগের আরো সংবাদ
Share via
Copy link
Powered by Social Snap