মধুপুরের প্রথম অনলাইন সংবাদপত্র

শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ১০:২৫ অপরাহ্ন

First Online Newspaper in Madhupur

শিরোনাম :
ঘাটাইলে কাভার্ডভ্যানের সঙ্গে মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে দুইজন নিহত ২৪ ঘন্টায় বঙ্গবন্ধু সেতুতে তিন কোটি টাকার টোল আদায় বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ১৩ কিমি জুড়ে যানবাহনে ধীরগ‌তি টাঙ্গাইলে খামারিরা প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে গরুর পরিচর্যায় ব্যস্ত সখীপুরে দেশি প্রজাতির বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উদ্বোধন ধনবাড়ীতে ঈদ উপলক্ষে ভিজিএফ চাল বিতরণ দেলদুয়ারে মেধাবী শিক্ষার্থীকে স্পন্দনবি বৃত্তি প্রদান গোপালপুরে সন্তানকে হত্যার পর বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করা বাবার মৃত্যু কালিহাতীতে জীবিতকে মৃত দেখিয়ে মেম্বারের শাশুরীর নামে ভাতার কার্ড দেলদুয়ারে ২৯ বছর ধরে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে চলছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

টাঙ্গাইলে দিনভর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ও বাতাস, বিদ্যুৎ সরবরাহ সর্ম্পূণভাবে বন্ধ!!

সংবাদ দাতার নাম
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০২৪
  • ৩৩ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ঘুর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে টাঙ্গাইলে দিনভর গুঁড়ি গুঁড়ি ও ভারি বৃষ্টি, সেই সাথে প্রচন্ডবেগে দমকা হাওয়া প্রবাহিত হচ্ছে। সেই সাথে বিদ্যুৎ সরবরাহ সর্ম্পূণভাবে বন্ধ রয়েছে। এতে করে চরমভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে টাঙ্গাইলের জনজীবন। দিনভার রাস্তায় যানবাহন কম চলাচল করতে দেখা গেছে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কাউকে ঘর থেকে বের হতে দেখা না গেলেও জীবন জীবীকার তাগিদে খেটে খাওয়া দিন মজুররা প্রতিকূল আবহাওয়া উপেক্ষা করে কাজে বের হন। অনেকে কাজ না পেয়ে বাড়ি ফিরেছে। সোমবার (২৭ মে) দিনব্যাপী এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে টাঙ্গাইলে সোমবার (২৭ মে) সকাল থেকে সারাদিন বিদ্যুৎ নেই। এছাড়া শহরের বাসাবাড়িতে পানি নেই, রাতে অন্ধকার নিমজ্জিত শহরে পরিণত হয়েছে। বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকায় মোবাইল কোম্পানির টাওয়ারগুলো নেটওর্য়াক বন্ধ হয়ে যায়। সেই সাথে মোবাইল চার্জ না থাকায় যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া ঝড়ে বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুৎতের তারে গাছ ও গাছের ডাল ভেঙে পড়ায় তার ছিড়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ সর্ম্পূণভাবে বন্ধ রয়েছে।

ঘুর্নিঝড় রেমালের প্রভাব টাঙ্গাইল জেলাতে এমনভাবেই পড়েছে। সকাল থেকে সন্ধ্যা রাত পর্যন্ত অবিরাম বৃষ্টি ঝড়ছে। এতে অন্যান্য স্বাভাবিক কাজকর্মের বেঘাতের পাশাপাশি চলতি ইরি বোরো মৌসুমে ধান কাটা মাড়াই চলছে। মাঠে এখনও পাকা ধান পড়ে আছে। দমকা হাওয়া ও বৃষ্টির পানিতে পাকা ধান গাছ নুয়ে পড়েছে। শ্রমিক দিয়ে পাকা ধান কেটে ঘরে তুলতে অধীর অপেক্ষায় কৃষকরা। প্রতিকূল আবহাওয়ায় শ্রমিক সংকটের সাথে সাথে ধান কাটার শ্রমিক মজুরিও বেড়েছে। সারাদিন বৃষ্ঠি থাকায় ধান ও খড় নিয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন কৃষকরা। শহরে বৃষ্টির কারনে রিকশা চালকরা স্বাভাবিকভাবে চলাচল করতে পারেনি, যাত্রীও ছিল কম।

এদিকে সারাদিন বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকায় অফিস আদালত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, কলকারখানা ও বাসাবাড়িতে চরম দুর্ভােগ পোহাতে হয়। রাতে হালকা বাতাস ও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হলেও সোমবার (২৭ মে) সকাল থেকে দমকা হাওয়া ও ঝড়ো বৃষ্টিপাত শুরু হয়। পৌর শহরের বাসিন্দা জাহানুর রহমান জাকি জানান, সারাদিন বিদ্যুৎ নেই। সে কারণেই বাসার মোটর থেকে পানি তুলতে পারছি না। রোববার (২৬ মে) রাতে ট্যাংকিতে যে পানি ছিল তা দুপুরে শেষ হয়ে গেছে। এখন পানি ছাড়া রান্না করা যাচ্ছে না। সারাদিন শেষে রাতেও বিদ্যুৎ না থাকায় পানির সাথে আলোর ব্যবস্থা করাও যাচ্ছে না। ইনছান আলী শেখ জানান, শহরের মধ্যে ঝড় হয়েছে, তাই বিদ্যুৎ খুটি বা তারের সমস্যা হয়েছে, সে কারণে বিদ্যুৎ নেই। সমস্যা হলেও তা সারাদিনে সমাধান করা উচিত। এখন রাত হয়ে গেছে বিদ্যুতের কারণে অন্ধকারে জীবন যাপন করতে হচ্ছে। বিদ্যুৎ না থাকায় আইপিএস চার্জ হয়নি। পুরো শহরবাসী অন্ধকারে নিমজ্জিত। আবুল কালাম আজাদ জানান, সোমবার (২৭ মে) সকাল থেকে বিদ্যুৎ নেই। দিনের বেলায় কিছুটা আলো থাকায় চলছে। রাতে বিদ্যুৎ না থাকায় রান্নাসহ সকল কাজ ব্যাহত হচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম জানান, সকাল থেকে বৃষ্টি হওয়ায় মাঠের পাকা ধান জমিতে শুয়ে পড়ে গেছে। অনেক জমিতে পানি জমে গেছে। খায়রুল ইসলাম জানান, সারাদিন বৃষ্টি হয়েছে। সোমবার (২৯ মে) সকাল থেকে রাত পর্যন্ত বিদ্যুৎ নেই। চরম দুর্ভোগের মধ্যে আছি। আব্দুল মানান জানান, সকাল থেকে বৃষ্টি হচ্ছে। জমিতে পাকা ধান পড়ে গেছে। ধানের জমিতে বৃষ্টির পানি জমে গেছে। সারাদিন ধরে বিদ্যুৎ নেই। মোবাইলে চার্জ নেই, প্রয়োজনে কারও সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করতে পারছি না।

সংবাদ টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
©2024 All rights reserved
Design by: POPULAR HOST BD
themesba-lates1749691102
Verified by MonsterInsights