মধুপুরের প্রথম অনলাইন সংবাদপত্র

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৪:১২ অপরাহ্ন

First Online Newspaper in Madhupur

শিরোনাম :
কলম্বিয়াকে হারিয়ে কোপার সর্বোচ্চ ১৬ বার চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা ঘাটাইলের সাগরদীঘি ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ বাসাইলে বন্যা ও নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ মির্জাপুরে সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ এর ৫ম মৃত্যু বার্ষিকী পালন টাংগাইলে কোট সংস্কারের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান গোপালপুরে স্ত্রীকে হত্যাকরে লাশ হাসপাতালে রেখে পালিয়ে স্বামী টাংগাইলে সাত দিনব্যাপী বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষ মেলা শেষ ভূঞাপুরে যৌন হয়রানির প্রতিবাদে মানববন্ধন গোপালপুরে পানিবন্দী মানুষের চিকিৎসার জন্য ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প চাকুরি সংশয়ে মাভাবিপ্রবির শিক্ষার্থীরা

মধুপুরে টাকা দিলেই ফিরে পাওয়া যায় চুরি যাওয়া বিদ্যুতের মিটার

সংবাদ দাতার নাম
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৫ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ১৫৭ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ টাঙ্গাইলের মধুপুরে বিদ্যুতের মিটার চুরির হিড়িক, টাকা চেয়ে চিরকুটে লিখে রাখা হচ্ছে মোবাইল নম্বর।

মধুপুরে আশঙ্কাজনক হারে অভিনব কায়দায় বিদ্যুতের মিটার চুরির হিড়িক পড়েছে। এতে করে দিশেহারা হয়ে পড়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও সুবিধাভোগীরা।

মিটার চুরি করে সেখানে রেখে যাওয়া চিরকুটে লিখা বিকাশ নম্বরের মাধ্যমে টাকা নিয়ে মিটার পুনরায় ফেরত দিচ্ছে এক শ্রেণির চোরের শক্তিশালী সিন্ডিকেট।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েকটি বিদ্যুতের মিটার চুরি হয়েছে। আর প্রতিটি মিটার চুরির পর ঘটনাস্থলে বিকাশ নম্বর লিখা কাগজের একটি চিরকুট রাখা হয়। পরে ওই বিকাশ নম্বরে যোগাযোগ করে চোর সিন্ডিকেটের সদস্যরা ৫ থেকে ১০হাজার টাকার বিনিময়ে আবার ওই মিটার ফেরত দিচ্ছে।

চুরি যাওয়া প্রতিটি মিটারের দাম ১৪ থেকে ১৮হাজার টাকা। বিশেষ করে ৩ ফেজের শিল্প/সেচের মিটারগুলো বেশি চুরি হচ্ছে।

গত শুক্রবার ১২ জানুয়ারী মধ্য রাতে উপজেলা রোডে শহীদস্মৃতি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় গেটের পশ্চিম পার্শে শিল্প কলা ফার্ম থেকে একটি মিটার চুরি হয়।

মিটার চুরির পর উক্ত স্হানে কাগজের চিরকুটে একটি মোবাইল নম্বর রেখে যায় চোরেরা।

চুরির ২ দিন পর বিকাশের মাধ্যমে টাকা পাঠিয়ে চোরদের ভাষ্যমতে সেই মিটার মালাউড়ি মোড়ের কলাবাগান থেকে ভুক্তভোগী শাহজাহান আলী উদ্ধার করে আনেন এবং আজ দুপুরে উক্ত স্থানে মিটারটি স্থাপন করেন ভুক্তভোগী শাহজাহান আলী।

তিনি জানান দুই দিন আমাদের প্রতিষ্ঠানের মিটার না থাকায় আমাদের ব্যাবসার ক্ষতি হয়েছে বলেও জানান। এতে করে উপজেলার প্রতিটি এলাকার মানুষদের মাঝে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

কখন যে কার মিটার চুরি হয়ে যায় এই আতঙ্কে রয়েছে পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকরা বলে তিনি জানান।

সংবাদ টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ
©2024 All rights reserved
Design by: POPULAR HOST BD
themesba-lates1749691102
Verified by MonsterInsights